শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা রণেশ দাশগুপ্তকে স্মরণ করলো উদীচী

বিনম্র শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা, সাহিত্যিক-সাংবাদিক রণেশ দাশগুপ্তকে স্মরণ করলো উদীচী। রণেশ দাশগুপ্তের ১৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গত ০৪ নভেম্বর বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় উদীচী ঢাকা মহানগর সংসদ আয়োজন করে স্মরণ সভা। উদীচীর কেন্দ্রীয় কার্যালয় (১৪/২, তোপখানা রোড- জাতীয় প্রেসক্লাবের বিপরীতে)- এ আয়োজিত স্মরণ সভার শুরুতে সঙ্গীত পরিবেশন করেন উদীচীর শিল্পীরা। এরপর শুরু হয় আলোচনা সভা। এতে সভাপতিত্ব করেন উদীচী ঢাকা মহানগর সংসদের সভাপতি কাজী মোহাম্মদ শীশ। এতে অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সভাপতি অধ্যাপক বদিউর রহমান, উদীচীর প্রতিষ্ঠাকালীন সদস্য কামরুল আহসান খান, উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সহ-সাধারণ সম্পাদক জামসেদ আনোয়ার তপন এবং অমিত রঞ্জন দে। স্মরণ সভায় রণেশ দাশগুপ্তের অনুবাদ করা একটি কবিতা আবৃত্তি করেন কেন্দ্রীয় সংসদের সদস্য নাজমুল আজাদ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন উদীচী ঢাকা মহানগর সংসদের সাধারণ সম্পাদক ইকবালুল হক খান ইকবাল।

স্মরণ সভায় বক্তারা বলেন, রণেশ দাশগুপ্ত আজীবন একটি অসাম্প্রদায়িক মৌলবাদমুক্ত সাম্যবাদী সমাজ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে লড়াই-সংগ্রাম করে গেছেন। একজন তুখোড় সাংবাদিক, বিজ্ঞ সাহিত্যিক, অসামান্য প্রাবন্ধিক হিসেবে রণেশ দাশগুপ্ত তাঁর জীবনকালে সবসময়ই তার আশপাশের মানুষকে শিখিয়ে গেছেন কীভাবে সৎ থেকে, নিজের আদর্শে অটল থেকে সমাজ পরিবর্তনের স্বার্থে ইতিবাচক কাজ করা যায়। এই লক্ষ্যেই ১৯৬৮ সালের ২৯ অক্টোবর শিল্পী-সংগ্রামী সত্যেন সেনসহ বেশ কয়েকজন প্রগতিশীল মুক্ত চিন্তার মানুষকে সাথে নিয়ে রণেশ দাশগুপ্ত প্রতিষ্ঠা করেন বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। রণেশ দাশগুপ্ত ছিলেন একজন শৃঙ্খলাপরায়ন ও দৃঢ়চেতা মানুষ। তিনি মনে করতেন শিল্পীরা যখন সংগঠক হিসেবে আবির্ভূত হন তখন সংগঠনকে অনেক দূর পর্যন্ত এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায়। নতুন প্রজন্মকে উৎসাহিত করার জন্য তিনি সবসময়ই সচেষ্ট ছিলেন। ভিন্ন ধর্মাবলম্বীদের প্রতি শ্রদ্ধা ও সহনশীল মানসিকতার ছিলেন বলে রণেশ দাশগুপ্ত ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষের কাছেই সমানভাবে জনপ্রিয় ছিলেন। একটি অসাম্প্রদায়িক, মৌলবাদমুক্ত ও সাম্যবাদী সমাজ গঠনে আজীবন লড়াই-সংগ্রাম করেছেন রণেশ দাশগুপ্ত। একজন ক্ষুরধার বুদ্ধিজীবী রণেশ দাশগুপ্ত শ্রমিক শ্রেণীর জন্য সহজবোধ্য ভাষায় প্রবন্ধ রচনা এবং বক্তব্য রাখার মাধ্যমে খুব সহজেই তাদেরকে আপন করে নিতে পারতেন। ১৯১২ সালে জন্মগ্রহণ করা রণেশ দাশগুপ্ত ১৯৯৭ সালের ০৪ নভেম্বর ভারতের পশ্চিমবঙ্গে মৃত্যুবরণ করেন।

Leave a Reply