মুক্তমনা ব্লগার অনন্ত বিজয় দাশ-এর হত্যাকাণ্ডে উদীচী’র তীব্র নিন্দা

মুক্তমনা ব্লগের অন্যতম অ্যাডমিন, বিশিষ্ট লেখক ও ব্লগার এবং সিলেট গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম সংগঠক অনন্ত বিজয় দাশকে কাপুরুষের মতো পেছন দিক থেকে হামলা করে হত্যার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। এক বার্তায় উদীচীর কেন্দ্রীয় সভাপতি কামাল লোহানী ও সাধারণ সম্পাদক প্রবীর সরদার বলেন, অনন্ত বিজয় দাশ ছিলেন একজন মুক্তমনা, প্রগতিশীল লেখক এবং এদেশের মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের যেকোন আন্দোলনের অগ্রসৈনিক। তাঁর অসাধারণ লেখনী এবং যুক্তিশীল চিন্তা-চেতনার মাধ্যমে তিনি নতুন প্রজন্মকে প্রগতির পথে চলার ক্ষেত্রে বারবার অনুপ্রেরণা জানিয়েছেন। সিলেট নগরীর জনবহুল এলাকা, সুবিদ বাজারে প্রকাশ্য দিবালোকে সবার সামনে অনন্ত বিজয় দাশের হত্যাকাণ্ড প্রমাণ করে রাষ্ট্র আজ প্রগতিশীল, মুক্তমনা মানুষদের নিরাপত্তা দিতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে।

প্রতিবাদপত্রে উদীচীর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক আরো বলেন, ২০০৪ সালের ২৭ ফেব্র“য়ারি বইমেলা থেকে ফেরার পথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক হুমায়ুন আজাদকে যে প্রক্রিয়ায় কুপিয়ে গুরুতর জখম করা হয়েছিল, এরপর এবছরের ফেব্র“য়ারি মাসে মুক্তমনা ব্লগের প্রতিষ্ঠাতা, বিজ্ঞান লেখক অভিজিৎ রায়কে যেভাবে হত্যা করা হয়েছিল, কিংবা গত ৩০ মার্চ তরুণ লেখক ওয়াশিকুর রহমান বাবুকে যেভাবে পেছন থেকে কাপুরুসের মতো হত্যা করা হয়েছে, ঠিক সেই একই কায়দায় হত্যা করা হয়েছে অনন্ত বিজয় দাশকে। আগের ওইসকল হতাকাণ্ডের যথাযথ বিচার নিশ্চিত করার মাধ্যমে হত্যাকারীদের যথোপযুক্ত শাস্তি প্রদান করা গেলে হয়তো অনন্ত বিজয় দাশকে এভাবে প্রাণ দিতে হতো না বলেও মন্তব্য করেন তারা। একইসাথে যত দ্রুত সম্ভব অনন্তের হত্যাকারীদের খুঁজে বের করে তাদের আইনের আওতায় আনার মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার দাবি জানান কামাল লোহানী ও প্রবীর সরদার।

উগ্র জঙ্গীবাদীদের হামলায় এদেশের মুক্তমনা ও প্রগতিশীল চিন্তাচেতনার মানুষ বারবার নিহত হলেও এখনও সরকার কেন দেশে উগ্র জঙ্গিবাদের প্রধান মদতদাতা সংগঠন, মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে বিরোধিতাকারী জামায়াত-শিবিরকে নিষিদ্ধ করছে না সে প্রশ্ন তোলেন উদীচীর সভাপতি কামাল লোহানী ও প্রবীর সরদার। নিহত অনন্ত বিজয় দামের পরিবার ও স্বজনদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান উদীচী নেতৃবৃন্দ।

Leave a Reply