প্রতিষ্ঠাতা রণেশ দাশগুপ্তকে স্মরণ করলো উদীচী

গান, আবৃত্তি, নাচ, পরম শ্রদ্ধায় অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা রণেশ দাশগুপ্তকে স্মরণ করলো উদীচী।  পরম শ্রদ্ধা ও ভালোবাসায় সাংবাদিক-সাহিত্যিক-প্রগতিশীল রাজনীতিবিদ রণেশ দাশগুপ্তকে স্মরণ করলো বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। উদীচী’র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা রণেশ দাশগুপ্তের ১০৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে গত ১৫ জানুয়ারি পুরান ঢাকার বাহাদুর শাহ পার্কে উদীচী আয়োজন করে জয়ন্তী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানের শুরুতে রবীন্দ্র, গণ ও লোকসঙ্গীত পরিবেশন করেন উদীচী’র শিল্পীরা। তারা পরিবেশন করেন- ‘কোন আলোতে প্রাণের প্রদীপ জ্বালিয়ে তুমি ধরায় আসো’, ‘আমরা পূবে-পশ্চিমে, আকাশে-বিদ্যুতে’, ‘মানুষ ছাড়া ক্ষ্যাপা রে তুই’ প্রভৃতি গান। এরপর উদীচী ঢাকা মহানগর সংসদের সভাপতি কাজী মোহাম্মদ শীশ-এর সভাপতিত্বে শুরু হয় আলোচনা সভা। এ পর্বে রণেশ দাশগুপ্ত-এর জীবন-সংগ্রাম, সাহিত্য চেতনা এবং তাঁর জীবনের নানা দিক নিয়ে আলোচনা করেন উদীচী কেন্দ্রীয় সংসদের সভাপতি অধ্যাপক ড. সফিউদ্দিন আহমদ, কেন্দ্রীয় সংসদের সাধারণ সম্পাদক জামসেদ আনোয়ার তপন, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যাপক এম এ আজিজ মিয়া এবং গণতন্ত্রী পার্টির সভাপতিম-লির সদস্য মাহমুদুর রহমান বাবু। এ পর্বটি সঞ্চালনা করেন উদীচী ঢাকা মহানগর সংসদের সাধারণ সম্পাদক ইকবালুল হক খান। আলোচনা সভার পর ‘আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে’ গানটির সাথে নৃত্য পরিবেশন করেন উদীচী ঢাকা মহানগর সংসদের নৃত্যশিল্পীরা। আবৃত্তি পরিবেশন করেন সরদার আব্দুল করিম, মিজানুর রহমান সুমন এবং আশুতোষ রুদ্র।

১৯১২ সালের ১৫ জানুয়ারি ভারতের আসাম রাজ্যের ডিব্রুগড়ে জন্মগ্রহণ করেন রণেশ দাশগুপ্ত। একটি অসাম্প্রদায়িক চেতনায় সমৃদ্ধ, মৌলবাদমুক্ত, সাম্যবাদী সমাজ গঠনের লক্ষ্যে ১৯৬৮ সালের ২৯ অক্টোবর শিল্পী, সংগ্রামী সত্যেন সেনসহ কয়েকজন প্রগতিশীল, মুক্ত চিন্তার মানুষের প্রচেষ্টায় ‘উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী’ গড়ে তোলার পেছনে অন্যতম ভূমিকা রাখেন রণেশ দাশগুপ্ত। তাঁর অসামান্য জ্ঞান, প্রজ্ঞা, মনন ও চিন্তাশীল উপস্থিতির মাধ্যমে উদীচী’র সংগ্রামকে নানা সময়ে বেগবান করেছেন রণেশ দাশগুপ্ত। ১৯৯৭ সালের ০৪ নভেম্বর কলকাতায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন মনীষী রণেশ দাশগুপ্ত।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.