উদীচীর সাংস্কৃতিক সম্মেলন ও প্রত্যাশা: গোলাম মোহাম্মদ ইদু

উদীচীর চলার পথপদর্শক প্রয়াত রণেশ দাশ গুপ্ত বলেছিলেন,সংস্কৃতি ক্ষেত্রে সারা বাংলায় অনেক মূল্যবান উপাদান ছড়িয়ে আছে যা মানুষকে উদ্বুদ্ধ করে এগিয়ে যাওয়ার। শুধু নান্দনিক দিক থেকে নয়.তার ঐতিহ্য নিয়ে সংগ্রামের মাধ্যমে বেচেঁ থাকার জন্য তা মূল্যবান। সেই আলোকে উদীচী পাথেও হিসেবে বেছে নিয়েছে এই সাংস্কৃতিক সম্মেলন। উদীচীর বিভিন্ন কর্মকান্ডের মধ্যে একটি হলো এই সাংস্কৃতিক সম্মেলন। এর মধ্য দিয়ে উদীচী বুঝে নিতে চায় তার পথ চলায় তার শক্তি সামর্থ ।
গতবার দেশের জেলা ও থানা মিলিয়ে ৫২টি শাখা তাদের অনুষ্ঠান ঢাকার শহীদ মিনারে পদর্শন করেছে। এবার এর শংখা অনেক বৃদ্ধি পাবে। Continue reading “উদীচীর সাংস্কৃতিক সম্মেলন ও প্রত্যাশা: গোলাম মোহাম্মদ ইদু”

শত অজানার খ-চিত্র : গোলাম মোহাম্মদ ইদু

যুগের দাবি মেটাতে রণেশ দাশগুপ্ত যুগের কর্মী হিসেবে আবির্ভূত হয়েছিলেন বাংলায়। নিজের দেশকে ইংরেজদের জোয়ালমুক্ত করার আন্দোলনে সে যুগের আন্দোলকারী বিপ্লবীদের সাথে তিনিও একাত্ম হয়েছিলেন। তখন দেশকে মুক্ত করাই ছিল মূল উদ্দেশ্য। আন্তর্জাতিক সমাজতান্ত্রিক মুক্তি আন্দোলনের ধাক্কাও ভারতের গায়ে তখন লাগতে থাকে। কিন্তু বিপ্লবীদের একই উদ্দেশ্য ভারতকে স্বাধীন করা। এ ব্যাপারে কাজ হচ্ছিল দুটি ধারায়। একটি ধারা ছিল গান্ধিজীর অহিংস আন্দোলন, দ্বিতীয় ধারা ছিল নেতাজী সুভাষ বসুর সশস্ত্র সংগ্রাম। দ্বিতীয় ধারার এই বিপ্লবীরা আবার দুটি ধারায় বা দুটি দলে সশস্ত্র সংগ্রাম শুরু করেন। এ দুটি দল সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে ভারতকে মুক্ত করে স্বাধীন হতে চায়। এদের একটি যুগান্তর, অন্যটি অনুশীলন দল। রণেশ দাশগুপ্ত অনুশীলন দলের হয়ে বহুদিন সশস্ত্র সংগ্রামে সক্রিয় ছিলেন। Continue reading “শত অজানার খ-চিত্র : গোলাম মোহাম্মদ ইদু”

রবীন্দ্রনাথকে ফিরে পাওয়ার আকাঙ্খা: গোলাম মোহাম্মদ ইদু

বিশ্বের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বিশ্বকবি রবীন্দ্র নাথের সার্ধশত জন্মজয়ন্তি উদযাপিত হচেছ মহাসমারোহে দু’দেশেই ভারত এবং বাংলাদেশে। আমরা বাঙালি, তাই নিজের জীবনের তাগিদেই আমরা আমাদের আসল ঠিকানা খুঁজে নিতে চেষ্টা করছি। মাঝে মাঝেই কিছু না বুঝেই আমাদের চলার পথে বাধার সৃষ্টি করে এসেছে প্রতিক্রিয়াশীল চক্র এবং ধর্মান্ধ মৌলবাদীরা। ওরা ধর্মের দোহাই দিয়ে ধর্মান্ধতার জিকির তুলে বাঙালি সত্তা থেকে আলাদা করতে চেষ্টার ত্রুটি করেনি রবীন্দ্রনাথকে। ব্যর্থ হয়েছে।
‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালবাসি’ এই দেশের গানটিকে (পরবর্তীতে যা আমাদের জাতীয় সংগীত হয়ে ওঠে) বিপ্লবী গান করে তুলেছিল। এই গানটিকে গাওয়ার জন্য আমরা উতলা হয়ে উঠতাম। মুক্তিযুদ্ধের মাঠে-পাহাড়ে জঙ্গঁলে মুক্তিওযাদ্ধা ক্যাম্পে এই গানটি আমাদের জয়ী হওয়ার প্রেরণা দিত। Continue reading “রবীন্দ্রনাথকে ফিরে পাওয়ার আকাঙ্খা: গোলাম মোহাম্মদ ইদু”