জামায়াত নেতা আব্দুস সুবহানের মৃত্যুদণ্ডের রায়ে উদীচীর সন্তোষ: কামারুজ্জামানের ফাঁসি দ্রুত কার্যকর দাবি

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় পাবনায় হত্যা, গণহত্যা, অপহরণ, নির্যাতনসহ অসংখ্য মানবতাবিরোধী অপরাধের অন্যতম প্রধান সংগঠক ও পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে প্রত্যক্ষভাবে সহায়তাকারী জামায়াতের সিনিয়র নায়েবে আমির আব্দুস সোবহানের ফাঁসির দণ্ডাদেশে সন্তোষ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। এক বিবৃতিতে উদীচীর সভাপতি কামাল লোহানী ও সাধারণ সম্পাদক প্রবীর সরদার বলেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ আব্দুস সুবহানের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড দেয়ায় ন্যায়বিচার সুনিশ্চিত হয়েছে। পাশাপাশি এর মাধ্যমে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার স্বপক্ষের কোটি কোটি মানুষের আশা-আকাঙ্খার সঠিক প্রতিফলন ঘটেছে বলেও মনে করে উদীচী।

মুক্তিযুদ্ধের সময় বাঙালির স্বাধিকার আন্দোলনের বিপরীতে অবস্থান নিয়ে পাবনা সদর ও ঈশ্বরদীতে ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করেন সুবহান। সেসময় নির্বিচারে মানুষ হত্যা, বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ করে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তিকে শেষ করে দিতে চেয়েছিলেন তিনি। আব্দুস সুবহানের বিরুদ্ধে আনা মোট নয়টি অভিযোগের মধ্যে ছয়টি প্রমাণিত হওয়ায় তিনটি অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন ট্রাইব্যুনাল। বাকি তিনটি অভিযোগে তাকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। মৃত্যুদণ্ড ছাড়া আব্দুস সুবহানের অন্য কোন রায় কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য হতো না বলে মন্তব্য করেন কামাল লোহানী ও প্রবীর সরদার। আব্দুস সুবহানের ফাঁসির রায়ে মুক্তিযুদ্ধের সময় নির্যাতনের শিকার মানুষদের পরিবার ও স্বজনরা স্বস্তি পেয়েছে বলে বিবৃতিতে মন্তব্য করেন উদীচীর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক। একইসাথে শুধুমাত্র রায় ঘোষণাই নয়, সব ধরনের আইনি কূট কৌশল, জটিলতা কাটিয়ে ও অন্যান্য বিচারিক প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে শিগগিরই আব্দুস সুবহানের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে- জনগণ এমনটাই প্রত্যাশা করে বলেও মন্তব্য করেন উদীচীর নেতৃবৃন্দ।

এদিকে, মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ড বহাল রেখে দেয়া আপিল বিভাগের চূড়ান্ত রায় প্রকাশ করার পর এবার দণ্ড দ্রুত কার্যকরের দাবি জানিয়েছে উদীচী। এক বিবৃতিতে উদীচীর সভাপতি কামাল লোহানী ও সাধারণ সম্পাদক প্রবীর সরদার আশা প্রকাশ করেন, আপিল বিভাগের চূড়ান্ত রায় প্রকাশের পর আইন অনুযায়ী রিভিউ আবেদনের যে অধিকার আসামিপক্ষের রয়েছে তা দ্রুত নিস্পত্তি করে অবিলম্বে রাজাকার কামারুজ্জামানের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হবে। আর এর মাধ্যমেই কামারুজ্জামানের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ নির্যাতনের শিকার শেরপুরের সোহাগপুর গ্রামের মানুষসহ অগণিত মানুষ শান্তি পাবে বলে মন্তব্য করেন উদীচীর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।

Leave a Reply